ব্লগ এবং ইউটিউব চ্যানেলের মধ্যে পার্থক্য কী ?

আমাদের কি ইউটিউব চ্যানেল বা ব্লগ শুরু করা উচিত ?

ব্লগ এবং ইউটিউব চ্যানেলের মধ্যে পার্থক্য কী ?

বন্ধুরা আজকে আমরা জানবো আমাদের মধ্যে অনলাইনে থেকে টাকা ইনকাম করার ইচ্ছে সবার রয়েছে তাই বন্ধুরা আমাদের অনলাইনে অর্থ উপার্জন এর জন্য ব্লগ বা ইউটিউব কোনটা বেস্ট অপশন হবে সেই বিষয় সম্পর্কে জানবো। বর্তমানে ইন্টারনেটের দ্রুত অগ্রগতি এবং উদ্যোক্তা ক্রিয়াকলাপগুলির সাথে একীকরণের কারণে আমরা কিছুটা সময় আমাদের অনলাইন আয়ের বিষয়টি আমাদের সাধারণ আয়ের পরিপূরক হিসাবে বিবেচনা করি বা আমাদের আর্থিকভাবে উত্সাহিত করে।

আমরা এ বিষয়ে তর্ক করতে পারি না যে নিয়োগের এক বিশাল শতাংশ তাদের কাজ উপভোগ করেন না। তাহলে কেসটি আপনার জন্যই যদি হয়, আপনি যদি ভাবছেন যে ইউটিউব চ্যানেল এবং ব্লগের মধ্যে কোন পথ দিয়ে এগিয়ে যাওয়া ভালো ?

এই পোস্টে আমরা দুটি বিকল্প সম্পর্কে আলোচনা করব এবং আমি বিশ্বাস করি সেখানে আপনি কী জন্য যাবেন সে সম্পর্কে একটি অবগত সিদ্ধান্ত আপনি নিতে সক্ষম হবেন।

ব্লগার এবং ইউটিউব এর মধ্যে পার্থক্য কী ?

একজন Blogger একটি ব্লগ চালায় আর অন্য দিকে একজন Vloggar একটি ইউটিউব চ্যানেল চালায়।

কোনটি ভাল ব্লগিং বা ইউটিউব ?

আমার দিক থেকে দেখলে ব্লগিংয়ের তুলনায় ইউটিউবের অনেক কাজ রয়েছে যেখানে আপনি ব্লগিং এ কেবলমাত্র আপনার ব্লগের জন্য আর্টিকেল লিখে এসেছেন। কিন্তু ইউটিউবে যেখানে আপনাকে ভিডিও করতে, এডিট করতে, নানা ধরনের কাজ করতে হয়। প্রয়োজনে আপনার ইউটিউব অফিস সেটআপ করারো প্রয়োজন পড়ে।

তবে আপনি যদি কোনও ইউটিউব চ্যানেল এ কাজ গুলি পছন্দ করেন তবে এটি খুব বেশি কষ্টের বিষয় নয়। কিছু লোক ভিডিও বানানোর চেয়ে আর্টিকেল লেখার কাজ পছন্দ করে থাকেন। তাই সবার ধারণা আলাদা।

একটি ব্লগ এবং ইউটিউব চ্যানেলের মধ্যে পার্থক্য কী ?

একটি ব্লগ এবং একটি ইউটিউব চ্যানেলের মধ্যে প্রধান পার্থক্য হ'ল একটি ব্লগের সাথে আপনাকে আর্টিকেল লিখতে হবে তবে ইউটিউব চ্যানেলের জন্য আপনাকে ভিডিও তৈরি করতে হবে।

আর একটি পার্থক্য হ'ল আপনি নিজের সম্পূর্ণ ব্লগের মালিকানা পেতে পারেন তবে একটি ইউটিউব চ্যানেলের সাথে যদি কোনও সুযোগে ইউটিউব যে কোনও কারণে আপনার চ্যানেলটি ডাউন করার সিদ্ধান্ত নেয় তবে আপনি এটি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন না কারণ আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি ইউটিউব সম্পত্তি হিসাবে অন্তর্ভুক্ত।

ব্লগিং বা ইউটিউব কি আর কোনটি বেশি লাভজনক ?

এটি একটি কঠিন প্রশ্ন কারণ যে যেটা পারে যেমন কেউ ভিডিও তৈরি করতে এবং ব্লগ পরিচালনা করতে। যদি তার মধ্যে ভিডিও তৈরির সামগ্রী থাকে এবং ব্লগিংয়ের আগ্রহ না থাকে তবে আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারি যে তার পক্ষে ইউটিউব বেস্ট অপশন হতে পারে।

আর অন্য দিকে কারো কাছে যদি ভিডিও তৈরি, নানান ধরনের কাজ, এডিটিং, ভিডিও বানানোর সামগ্রী ইত্যাদি যদি না থাকে তবে সে শুধু আর্টিকেল লিখে নিজের ব্লগিং ক্যারিয়ার স্টার্ট করতে পারে। অর্থাৎ তার কাছে ব্লগিং অপশন সব থেকে বেস্ট।

সেই পরিস্থিতি দেওয়া হয়েছে এবং এর বিপরীতে। সুতরাং মূলত এর দ্বারা আমি যা বোঝাতে চাইছি তা হল, আপনি যদি ইউটিউব বা ব্লগিং সম্পর্কে উত্সাহী হন তবে আপনি এটিতে ভাল হবেন এবং বিনিময়ে আরও বেশি লাভজনক হবেন। কারণ ইউটিউব এবং ব্লগিং উভয় থেকে অর্থ উপার্জন এর জন্য ট্র্যাফিক প্রয়োজন।

কিছু লোক আপনাকে বলবে যে উপার্জনের জন্য আপনার ট্র্যাফিকের দরকার নেই তবে এটি মিথ্যা। এটি কারণ আপনি যে কোনও উপায়ে আপনার ইউটিউব চ্যানেল বা ব্লগকে উপার্জন করছেন। আপনার উপার্জন এর সুবিধার্থে আপনার ট্র্যাফিকের প্রয়োজন হবে।

বিজ্ঞাপনের উপার্জন বা অনুমোদিত বিপণনই হতে পারে। আমার উপর বিশ্বাস করুন আপনার নগদ প্রবাহিত হওয়ার জন্য সেই বিজ্ঞাপনগুলিতে ক্লিক করার জন্য লোকের প্রয়োজন হবে এবং অনুমোদিত লিঙ্কগুলি থেকে আপনি উপার্জন করতে পারবেন।

তাই হ্যা! যার সম্পর্কে আপনি আগ্রহী সে অপশন বেছে নিয়ে আপনি কাজ শুরু করতে পারবেন এতে দীর্ঘমেয়াদে আপনার পক্ষে লাভজনক হবে।

কখনও কখনও আমরা অন্যান্য লোকদের সাফল্যের দ্বারা মোটিভেট হয়ে থাকি। উদাহরণস্বরূপ, ব্লগিং এ আপনার বন্ধু ভালভাবে কাজ করেছে এবং ভালো টাকা উপার্জন করছে এতে এই নয় যে সে ব্লগিং করে এত টাকা উপার্জন করছে বলে আপনিও এটি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। সুতরাং আপনার যেটা ভালো লাগে সেটা নিয়ে ভাবুন। 

আপনার ট্র্যাফিক না থাকা সত্ত্বেও আপনি কি ধারাবাহিকভাবে সামগ্রী প্রকাশের জন্য ধৈর্যশীল ? আপনার প্রশংসিত প্রতিটি ব্লগ বা ইউটিউব চ্যানেলের পিছনে অনেক প্রচেষ্টা রয়েছে।

আপনার বন্ধুটি ব্লগিংয়ে ভাল হতে পারে এবং ইউটিউবে তেমন ভাল নাও হতে পারে কেননা আমরা সবাই জানি যে সবাই ক্যামেরার সামনে আসতে চায় না।

আপনার একজন ইউটিউবার এবং একজন ব্লগার এর সাথে সাক্ষাৎ করা উচিত এবং তাদের জিজ্ঞাসা করা উচিত, আপনি কোনটি শুরু করতে এবং চালাতে সক্ষম এবং সর্বোপরি কাজটি উপভোগ করা উচিত। যাইহোক, আপনি পাশাপাশি উভয় মডেল বেছে নিতে পারেন। যে কোনও উপায়ে সীমাবদ্ধতা নেই।

সবকিছু চেষ্টা করে এবং হ্যাঁ যদি অন্য লোকেরা এটি করে থাকে তবে আপনি এটি করতেও পারেন। এটি কেবল আপনার দক্ষতার মূল্যায়ন করার এবং কোনও কিছুতে ভাল হওয়ার জন্য আপনাকে কী করা বা শেখার দরকার তা দেখার বিষয়।

অনলাইনে ইউটিউব থেকে শুরু করে এতগুলি নিখরচায় বিসনেস করার আইডিয়া রয়েছে। অন্যান্য ইউটিউব চ্যানেলগুলি যা এটি করেছে এবং তাদের যাত্রা ভাগ করে নিচ্ছে সেগুলি থেকে কোনও ব্লগ বা একটি YouTube চ্যানেল কীভাবে শুরু করতে এবং চালাতে হয় তা আপনি শিখতে পারেন।

কেবল প্রশ্নের সরাসরি উত্তর দেওয়ার জন্য ব্লগিং এবং ইউটিউব একরকম একে অপরের পরিপূরক।

আপনি যা সম্পর্কে আগ্রহী তা বেছে নিয়ে কাজ শুরু করুন। কেবল এটির জন্য যান এবং আপনার লক্ষ্য নির্ধারণ করুন এবং এটি সম্পন্ন করার জন্য আপনার গোল সেট করুন।

উপসংহার :-

আপনার জন্য " ব্লগ এবং ইউটিউব চ্যানেলের মধ্যে পার্থক্য " এটাই ছিল আজকের আলোচনার বিষয়। আমি আশা করি এই পোস্টটি আপনাদের ভালো লেগেছে।

Post a Comment

0 Comments